জেলা পরিচিতি - পৃষ্ঠা নং-১৪

বাংলার প্রায় প্রতিটি গ্রামের পূর্বে বা পরে পরিচয়াত্মক শব্দ দেখতে পাওয়া যায়। যেমন পুর, ডাঙ্গা, খাল, খালি, দহ চর, চক, দি, দিয়া, হাট, ঘাট, পাড়া ইত্যাদি। এরমধ্যে পুর অর্থ জনসমাবেশ এবং তা নগর অর্থে ব্যবহৃত হয়। পুর থেকেই পৌর বা নগর বিকাশের ক্ষেত্রে এ পরিচয়াত্মক শব্দটি ব্যবহৃত হচ্ছে। উর, পুর, দি, দিয়া, দিয়াড়া; বিল, নালা এগুলি বাংলায় আদি খাঁটি শব্দ যা অনার্যরা ব্যবহার করত। বঙ্গে আর্য ব্রাহ্মণদের আগমন ঘটে অনেক পরে। তার পূর্বে অনার্য অধিবাসীরাই ছিল বঙ্গের অধিবাসী। তবে পুরের পরিচয়ে সকল গ্রামের নাম আদি দ্রাবিড় বা ভোটচীন গোষ্ঠির দেওয়া নাম নয়। গ্রাম জীবনের বিকাশ ঘটেছে শত শত বছর ধরে। এরমধ্যে মৌর্য, গুপ্ত, পাল, সেন তুর্কী, পাঠান, সুলতান, মোগল, ইংরেজ, পাকিস্তানি শাসন চলেছে। সব কালেই নতুন নতুন গ্রামের উৎপত্তি ঘটেছে। সে ক্ষেত্রে প্রাচীন ব্যবহৃত পুর শব্দটির ব্যবহারের সাথে যোগ হয়েছে খাল, চর, দহ, দি, দিয়া, গাঁড়া, সারা, গ্রাম, বাড়ি, হাট, বাজার, গঞ্জ, তালক, নালা, তলা, এলি, আদ, বাদ, জানি, কান্দা, কান্দি, ডাঙ্গা, লিয়া, ইল, বিল, লাট, লাটি, লি, দা, বাত, বাতান, কন্দ জনা, ডোরা, ঝোপ, জঙ্গল, বন, ঝুপি, থুপি, তুরি, শিয়া, নগর, রাট ইত্যাদি। আবার গাছের নামে, মাছের নামে, পাখির নামেও গ্রামের নাম রয়েছে।

গ্রামসমূহের উৎপত্তির দিকে লক্ষ্য করলে দেখা যায় সপ্তম অষ্টম শতক থেকে শাসনতান্ত্রীক কাঠামোর মধ্যে ভূক্তি, বিষয়, মন্ডল, বিথী ও গ্রামের উল্লেখ আছে। আজকে যেমন অনেকগুলি গ্রাম নিয়ে গঠিত হয় ইউনিয়ন, তখন কয়েকটি গ্রাম নিয়ে গঠিত হত বিথী। কয়েকটি বিথী নিয়ে বিষয়, কয়েকটি বিষয় নিয়ে মন্ডল, কয়েকটি মন্ডল নিয়ে গঠিত হত ভূক্তি। অত্র এলাকায় স্মতট পদ্মাবতী বিষয়, বারক মন্ডল, কুমার তালক মন্ডল ইত্যাদির সংবাদ পাওয়া যায়। রাজবাড়ি জেলার গ্রামগুলির উৎপত্তিকাল ঠিক কখন থেকে তা সুনির্দিষ্ট করে বলা না গেলেও ইউয়ান চোয়াং বাংলায় যে ৩০টি বৌদ্ধ সংঘারামের কথা বলেছেন তার মধ্যে একটির অবস্থান নির্ণীত হয়েছে পাংশায় (পুরাত্ত্ববিদ পরেশনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়)। বৌদ্ধ ধর্মের বিকাশকাল খ্রিষ্টপূর্ব প্রায় ৫০০ খ্রিষ্টীয় শতক পূর্ব থেকে ৭ম/৮ম শতকের পাল শাসন পর্যন্ত সুদীর্ঘ প্রায় এক হাজার বছর। ইউয়ান চোয়াং যে বৌদ্ধ সংঘারামের কথা বলেছিলেন সে সব বৌদ্ধ সংঘারাম নিশ্চয়ই ষষ্ঠ শতকের অনেক পূর্বে প্রতিষ্ঠিত হয়ে থাকবে। সে কারণে বলা যায় পাংশায় যে বৌদ্ধসংঘারম ছিল তা হয়তো ১ম/২য় শতক হতে বা তার পূর্বে বা পরেও হতে পারে। তবে নিশ্চয়ই ষষ্ঠ শতকের অনেক পূর্বে । তাই রাজবাড়ি জেলার গ্রামের ভিত্তি খ্রিস্টীয় ১ম শতক বা তার পূর্ব থেকেই বিকাশ লাভ করে। আরো একটি নিদর্শন রাজবাড়ি জেলার গ্রামবসতির প্রাচীনত্বের স্বাক্ষর বহন করে। ২০০১ সালে বালিয়াকান্দি থানার ইসলামপুর ইউনিয়নের তেঘারী গ্রামে পুকুর খনন কালে কষ্টিপাথরের তৈরী একটি বিষ্ণুমূর্তি পাওয়া যায়। মূর্তিটি বর্তমানে ঢাকা জাদুঘরে আছে। উল্লেখ্য গুপ্তরাজগণ হিন্দুতান্ত্রীক এবং কেহ পরম বৈষ্ণব ছিলেন। বালাদিত্য বৌদ্ধ ছিলেন। সমুদ্রগুপ্ত ও দ্বিতীয় চন্দ্রগুপ্তের সময়ে বিষ্ণুমূর্তি পূজাপদ্ধতি বিশেষভাবে প্রচলিত হয়। স্কন্ধগুপ্তের সময় ধর্মের প্রতি তারা আকৃষ্ট হয়। আমাদের দেশে যে সকল সুন্দর চতুর্ভুজ বাসুদেব প্রকৃতি বিষ্ণুমূর্তি দৃষ্ট হয় তার কতকগুলি গুপ্ত যুগে এবং কতগুলি সেন যুগে প্রতিষ্ঠিত হয়। পদ্মাবতি বিষয়, বারক মন্ডল, কুমার তালক মন্ডল, পাংশায় বৌদ্ধ সংঘারাম, তেঘারির বিষ্ণুমূর্তি এবং ১০৫৬ টি গ্রামে এরমধ্যে প্রায় ২০০টি পুর, দি, দিয়া, হওয়ায় বলা যায় গুপ্ত যুগ থেকেই এ অঞ্চলে জনপদ গড়ে ওঠে। তবে সুলতানি, মোগল শাসনামল থেকেই ব্যাপকভাবে গ্রামসমূহের বিকাশ ঘটে।

রাজবাড়ি জেলার গ্রাম সকলের পূর্বে বা পরে পরিচায়কত্মক শব্দ হিসেবে পুর, দি, দিয়া, ধিয়া, লিয়া, গাতি, কান্দা, কান্দি, বাড়ি, বাড়িয়া, গ্রাম, পাড়া, নগর, খাল, খালিয়া, কালিয়া, কোলা, বিল, ইল, হাওড়, কোল, দোহা, দহ, কোল, কোলা, লেঙ্গা, লেঙ্গী, রেন্দা, উরি, কুড়ি, উলি, লুন্দি, কাউল, কাচু, দিলা, গিলা, মংলায়, বাঙলট, ত্রিচট, পেটট, মাছের নাম, গাছের নাম, ফলের নাম, ফসলের নাম, ডাঙ্গা, ডাঙ্গী, বুনিয়া, হাট, গঞ্জ, চক, কশবা, চর, ভর, দহ, এলা, তলী, ইত্যাদি রয়েছে। নামের পূর্বে বা পরে এমন পরিচয়াত্মক শব্দের আলোকে রাজবাড়ির গ্রামসমূহের উৎপত্তির ধারাবাহিকতা জানা যাবে।

Additional information