প্রাচীন জনপ্রবাহ - পৃষ্ঠা নং-১০

মোরাদ খান

সুলতানি শাসনামল থেকে দক্ষিণ বাংলায় ফতেহাবাদ, খলিফাতাবাদ ও মাহমুদাবাদ রাজ্যের উদ্ভব ঘটে। এসব রাজ্যের রাজা দিল্লী সম্রাটের নামমাত্র বশ্যতা স্বীকার করে স্বাধীনভাবে রাজ্যশাসন করতেন। ফতেহাবাদকে এখন ফরিদপুর বলে। সম্ভবত বঙ্গেরশ্বর ফতেশাহের রাজত্বকালে ১৪৮২-৮৭ তে ফতেহবাদ নামের উৎপত্তি হয়। ফতেহ শাহ হতে হোসেন শাহ, নশরত শাহ প্রভৃতি বহু নৃপতির নামাঙ্কিত মুদ্রা পাওয়া যায়। (Catalouge of coins in Indian Museum voll-11 part 11:Nos 153-54 168, 169-70 and 202- Ain-e-Akbari, Bloch Ann P-374)। ফতেহাবাদ, খলিফাতাবাদ, মাহমুদাবাদ পরবর্তীতে চাকলা ও সরকারের বিভক্ত হয়। বর্তমান ফরিদপুর, রাজবাড়ি ও গোপালগঞ্জ ফতেহাবাদ, খলিফাতাবাদ মাহমুদাবাদ জেলার অংশবিশেষ এ সকল সরকারের কিছু অংশ চাকলা ভূষণা ও চাকলা জাহাঙ্গীর নগরের অঙ্গীভূত থাকে।

সে সময় দাউদ নামে এক পাঠান রাজা ছিলেন ভূষণাধিপতি। সম্ভবত তিনি ১৫৬৫ সালে ভূষণার অধিপতি হন এবং তার উত্তরাঞ্চলীয় রাজধানী ছিল বর্তশান রাজবাড়িতে। (রিজা-উস-সালাতিন পৃষ্ঠা-৪২)। কেহ কেহ অনুমান করেন রাজবাড়িতে কোনো বিদ্রোহী রাজার রাজধানী ছিল। এর অনেকটাই সত্যতা মেলে যখন দেখি আকবর সেনাপতি মোরাদ খান দাউদকে পরাজিত করে রাজবাড়ির অনতিদূরে খানখানাপুরে স্থায়ী বসতি গড়ে তোলেন। দাউদ খান বিদ্রোহী হলে ১৫৭৪ সালে সম্রাট আকবর, বিদ্রোহ দমনে সেনাপতি মুনেম খাকে পাঠান। এ প্রসঙ্গে সতিশ চন্দ্র মিত্রের যশোর-খুলনার ইতিহাসে ২২ পৃষ্ঠায়। ‘ সেনাপতি মুনেম খাঁ যখন (১৫৭৪) সসৈন্যে বঙ্গে আসেন তখন মোরাদ খাঁ নামক একজন সেনানী তাহার সহচর ছিলেন। তিনি ফতেহবাদ সরকারে বিদ্রোহ দমন করেন। ভূষণাই এই সরকারের জমিদারী ছিল। দাউদের সহিত মুনেম খাঁর সন্ধি হলে মোরাদ জলেশ্বরের শাসনকর্তা নিযুক্ত হন। মুনেমের মৃত্যুর পর দাউদ পুনরায় বিদ্রোহী হইয়া ভদ্রকের শাসনকর্তা নজর বাহদুরকে হত্যা করেন। তখন মোরাদ পুনরায় ফতেহাবাদে প্রেরিত হন এবং তথায় তাহার মুত্যু হয়।’ আনন্দনাথ রায়ের ফরিদপুরের ইতিহাসে ৭১ পৃষ্ঠায়, ‘হিজরী ৯৮৮ সালে সম্রাট আকবরের বঙ্গাধিকারের সময়কালে মোরাদ খাঁ পাঠান সুবেদার দাউদের অধীন থাকিয়া ফতেহবাদ শাসন করিতেন। পরে মেদিনীপুর ও জলেশ্বরের মধ্যবর্তী মোগলমারী (তুকারো) নামক স্থানে মোগল পাঠানে যে যুদ্ধ হয় তাহাতে পাঠানেরা পরাস্থ হইয়া প্রস্থান করিলে পর হিজলীর (উড়িষ্যা) সামার খাঁ, ফতেহবাদের মোরাদ খাঁ এবং সাতগাঁর মিরজানবাদ মোগল বশ্যতা স্বীকার করে।’ প্রখ্যাত রাজনীতিবিদ তমিজউদ্দিন খান এর ‘The Test of time---my life and days' গ্রন্থে ২ পৃষ্ঠায়---- The great Moghul Akbar had dispatched a big army in 1574 for the subjugation of Bengal. A separate force was dispatched from the army under the command of the general Murad Khan Khankhanapur for the conquest of south-East Bengal. According to the Akbarnama (Akbar memories) Murad Khan conquered Fatahabad which was become Faridpur as well as Bakergong. He did not return to Delhi of completing his task. But settled along with a number of his men in the Fatehabad. According to some historians, he took up residence in at village he honourd by conferring on it in the name of Khnkhanapur is the largest village of the Goalanda sub-division of the districts of Faridpur.

Additional information