নব্যজমিদার বংশ - পৃষ্ঠা নং-৫

আর একদিনের কথা, স্বাস্থ্য পরিবর্তনের জন্য রাজা ঢাকা থেকে গ্রীনবোট এনে বেলগাছি নিয়ে পদ্মা নদীতে অবস্থান করছিলেন। ত্রৈলোক্যনাথের কথায়----‘আমি গিয়া বোটে উঠিলাম। রাজা তখন নৌকায় বসিয়া ছিপ দিয়া মাছ ধরিতেছিলেন। আমাকে দেখিয়াই বলিলেন, কী হে, ব্যাপার কী? ঠিক ঐ সময়ে ভারী ওজনের একটি কাতলা মাছ লাফ দিয়া নৌকা গর্ভে পড়িল। তিনি আনন্দিত হইয়া বলিলেন----‘তুমি তো আচ্ছা মৎস্যরাশির মানুষ? আমি এক ঘন্টা বসিয়া আছি একটি মাছেও টোপ গিলছে না, আর তুমি আসা মাত্র তোমাকে দেখিতে আসিল। (পৃষ্ঠা-১৭)।

ত্রৈলোক্যনাথ গ্রীনবোটে রাজার সাথে দেখা করতে গিয়েছিলেন একটি বিষয়ে পরামর্শ করতে। ফরিদপুরের সেটেলমেন্ট অফিসার জ্যাক সাহেব (আইসিএস) গ্রাজুয়েটদের মধ্য থেকে কানুনগো নিয়োগ করছেন। যারা এখন ঢুকবে তারা কানুগো কাজ শেষ হইলে সাব ডেপুটির কাজ পাবে। ত্রৈলোক্যনাথ জ্যাক সাহেবের সাথে দেখা করে চাকরিত যোগদানের জন্য সাতদিনের সময় নিয়ে এসেছেন। এখন রাজার অনুমতি পেলে যোগদান করবেন। ত্রৈলোক্যনাথের সব কথা শুনে রাজা বললেন, ‘বেশ তো স্কুল ঘরে তালা লাগাইয়া যাও। আমি স্কুল করিয়াছিলাম যখন রাজবাড়ির চর্তুদিকে ২০ মাইলের মধ্যে কোনো স্কুল ছিল না। একমাত্র ফরিদপুর জেলা স্কুল ছাড়া রাজবাড়িতে মাত্র ঈশ্বর পণ্ডিতের ছাত্রবৃত্তি স্কুল ছিল। তাহাও ভালোরুপ চলিত না। আমি স্কুল করিবার ৫ বছর পর বাণীবহের বাবুরা স্কুল করিলেন (গোয়ালন্দ হাইস্কুল)। তখান আর আমার স্কুল রাখিবার কী প্রয়োজন ছিল? একমাত্র তোমার জন্যই স্কুল রাখিয়াছিলাম। তুমি ডাকঘরে চাকরি পাইলে তাতে মন বসিল না। আসিলে রাজবাড়ি স্কুলে-২৫০ টাকা ছাড়িয়া ৫০টাকায় এখন চাও মেঠো আমিনী করিতে। জ্যাক সাহেবের বাচ্চা ----জল কাদা ভাঙ্গিয়া, ঝড় বৃষ্টি মাথায় করিয়া বুট পায়ে ছুটবে মাঠে ঘাটে। তোমাকেও দৌড়াইতে হইবে। তোমাকেও সঙ্গে সঙ্গে দৌড়াইতে হইবে। পারিবে তাল সামলাইতে?’ (পৃ-১৭১৮)। এরপর ত্রৈলোক্যনাথ স্কুল ছেড়ে যাননি। সুদীর্ঘ ৪২ বছর উক্ত বিদ্যালয়ে সহকারী প্রধান শিক্ষক ও প্রধান শিক্ষক হিসেবে নিয়োজিত ছিলেন।

রাজা বিদ্যান ছিলেন না কিন্তু বিদ্যার প্রতি ছিল গভীর অনুরাগ। গোয়ালন্দ মহকুমার গভর্ণমেন্ট সাহায্যকৃত হাইস্কুলটি পদ্মার ভাঙ্গনে নদীগর্ভে বিলীন হলে রাজবাড়ি উঠে আসে এবং তৎকালীন ডিপিআইসিএ মার্টিন সাহেবের অনুরোধে রাজা সূর্যকুমার এর পরিচালনার ভার গ্রহণ করেন। রাজা সূর্যকুমার প্রতিষ্ঠিত হাসপাতাল সংলগ্ন স্থানে (বর্তমান এসপি ও সিভিল সার্জন এর বাসা যে স্থানে ঐ স্থানটিতে সূর্যকুমার প্রতিষ্ঠিত হাসপাতল ছিল। পরে তা সিভিল সার্জনের অফিস ছিল)। স্থানান্তর করা হয়। কোনো কারণে বিদ্যালয়টি পরিচালনা সম্ভব না হওয়ায় রাজা ১৮৮৮ সালে রাজা সূর্যকুমার ইনস্টিটিউশনটি (R.s.k) প্রতিষ্ঠা করেন। কেবল রাজবাড়ির ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আর এস কে ইনস্টিটিউশনর প্রতিষ্ঠাতাই নন, নিজ গৃহে গড়ে তোলেন লাইব্রেরি। রাজার মৃত্যুর পর শ্যালক মতিলাল জমিদারী দেখাশোনা করতেন। তিনি কিছুটা অপ্রকৃতস্থ ছিলেন। লাইব্রেরি বিষয়ে ত্রৈলোক্যনাথ লিখেছেন---‘একদিন শুনিলাম মতিলাল রাজার লাইব্রেরিটি রাজবাড়ি উডহেড লাইব্রেরিকে দান করিয়া বসিয়াছেন। ----আলমারী বুককেসসহ এবং এসডিও আর এস দাসকে কথা পর্যন্ত দিয়া ফেলিয়াছেন। আমি সারা থেকে (ত্রৈলোক্যনাথ ১৯১৯ হইতে ১৯২৪ পর্যন্ত সারা স্কুলে ছিলেন) ছুটিয়া আসিয়া এসডিও’র সঙ্গে দেখা করিয়া বললেন, ঐ লাইব্রেরিটি রানীদের ----তাহারা বহু টাকা ব্যয় করিয়াছেন উহার পিছনে। তাহারা এখনো জীবিত। তাছাড়া আমরা স্টেটের  একজিকিউটর মাত্র। স্টেটের বা অন্যের সম্পত্তি দান করিবার কোনো অধিকার আমাদের নেই। আপনি কিছু মনে করিবেন না।’ অতঃপর মতিকে বললেন, ‘একি তোমার পৈত্রিক সম্পত্তি যে দান করিয়া বসেছিলে।’ (পৃষ্ঠা-৮০)? এর পর মতিলাল ঘোষ দস্তিদার কাবিলপুর পরগনা পরিদর্শন করতে যেয়ে ‘জগন্নথ’ বেশ ধারণ করেন। প্রকৃতপক্ষে তার মুস্তস্ক বিকৃতি ঘটে(১৯২২)। পূর্বেই বলা হয়েছে রাজা ভুবেনশ্বরে একখানি বাড়ি এবং ভূ-সম্পত্তি করেন। রানীদের নিয়ে রাজা শেষজীবন ভূবেনশ্বরেই কাটান। অনুমান ১৯১২ সালে রাজা ভূবেনশ্বরে দেহত্যাগ করেন। সেখানেই রাজার শ্রদ্ধাদি এবং পারলৌকিক কার্যাদি সম্পন্ন হয়। রাজার শ্রদ্ধাতে এক হাজার ব্রাহ্মণ নিমন্ত্রিত হন। পাণ্ডাদের সাহায্যে এবং নিমন্ত্রিত অতিথেদের ভোজন ও দক্ষিণা দ্বারা আপ্যায়িথ ও পরিতুষ্ট করা হয়। পূর্ব হইতেই রাজাকে যেখানে দাহ করা হয় সেখানে শিব মন্দির প্রতিষ্ঠার সঙ্কল্প ছিল এবং যথাসময়ে রাজার প্রথম পক্ষের শ্যালক এবং দ্বিতীয় পক্ষের সম্পর্কীয় শ্যালক অম্বিকাচরণ মজুমদার (ফরিদপুর) এবং ত্রৈলোক্যনাথ এর সহযোগিতায় শিবমন্দির নির্মাণ করা হয়।

Additional information