জেলা গঠনের ইতিহাস - পৃষ্ঠা নং-৩৩

অবশ্য গোয়ালন্দ থেকে জাহাজ, স্টিমার, নৌকায় দেশের অন্য স্থানে যাতায়াত করা যেত। ষাটের দশক থেকে পাকা সড়ক নির্মিত হতে থাকে। এ সময় রাজবাড়ি ফরিদপুর পাকাসড়ক নির্মিত হয়। রাজবাড়ি জেলার পাকা রাস্তাঘাট ব্যাপক নির্মাণ কার্যক্রম শুরু হয় আশির দশকের মাঝামাঝি থেকে। বর্তমান জেলার প্রতিটি থানা বৃহৎ হাটবাজারসহ প্রায় হাজার গ্রামের মধ্যে ৭৫% গ্রাম প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে পাকা সড়কের সুবিধা ভোগ করছে। জেলার ৪০% গ্রাম বিদ্যুতের আওতায় এসেছে। জেলায় গড়ে উঠেছে ২২টি কলেজ অসংখ্যা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। শিক্ষার হার দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে। শিক্ষিত যুবক-যুবতীরা বিপুল কর্মোদ্যমে চাকরি, ব্যবসা বাণিজ্যের ঝাঁপিয়ে পড়েছে। দৌলতদিয়া-পাটুরিয়ায় পদ্মা ব্রিজ নির্মাণের দাবি তীব্র হয়ে উঠেছে। পাটুরিয়ায় পদ্মা সেতু নির্মাণের প্রয়োজনীয়তা সরকার ব্যক্ত করেছে। এ বিষয়ে একটি পরিপত্র জারি হয়েছে বলে জানা যায়। দৌলতদিয়া পাটুরিয়া সেতু নির্মিত হলে রেলপথ ঢাকা পর্যন্ত স্থাপন করা সহজ হবে। অবস্থানগত দিক থেকে রাজবাড়ি ঢাকার নিকটবর্তী। রাজবাড়ির ভূমি তুলনামুলক উঁচু। বাসভূমি ছাড়াও শিল্প কারখানা স্থাপনের অনুকূল পরিবেশ রয়েছে। অদূর ভবিষ্যতে রাজবাড়ি থেকে মাত্র এক বা দেড় ঘন্টায় এ এলাকার মানুষ ঢাকায় অফিস করতে পারবে। পাটুরিয়ায় পদ্মা সেতু নির্মিত হলে রাজবাড়ি সিটি শহরে পরিণত হবে।

আমি তাকে ভালোবাসি নামের আড়ালে

ভালোবাসি উর্বর সমতলের সবল বৃক্ষের শাখা

যখন এলোমেলো দোল খায় ঝড়ো বাতাসে।

রাজার প্রশস্ত রাজপথে হেঁটে যায় প্রজা

হাঁটে শিশু, কিশোর, যুবা বৃদ্ধ

সকাল, দুপুর সন্ধ্যা গড়ায়----

কেবল দৃশ্যের অন্তরালে দৃশ্য হারায়।

লগ্ন সন্ধ্যায় অমর্তলোকে-আহবান

কেউ গৃহকোণে, কেউ মসজিদে, মাথা নোয়ায়।

শারদীয় উৎসবের মন্দির রাতের আবেশ ঢেকে দেয়

উর্ধ্বলোকে জ্যোতি আঁধার বদলে দেয়।

কতকাল আছি রাজবাড়ি?

তা পঞ্চাশ বছর প্রায় !

দৃষ্টির সীমানা থেকে দৃষ্টি ফিরে আসে।

কখনো দেখেছি বিনিময় মূল্য তেমন নেই

এমন শাপলার আঁট ডান হাতে

Additional information