ধর্মীয় সম্প্রদায় - পৃষ্ঠা নং-২

বঙ্গে ইসলাম প্রবাহের কয়েকটি কারণ উল্লেখযোগ্য যথা-----তরবারি, সামাজিক সাম্য, পীরদরবেশ ও আউলিয়াদের ধর্ম প্রচার, বৌদ্ধ ও হিন্দুদের সামাজিক অবস্থা এবং বঙ্গের সহজ জীবন ব্যবস্থা। ভারতবর্ষে যদি কেবল তরবারির দ্বারা ইসলামের প্রসার ঘটত তাহলে দিল্লী, আগ্রাতেই মুসলমান বেশি থাকত। কিন্তু তুলনামূলক দেখা যায় ইসলাম ধর্মের প্রসার ঘটেছে দ্রুত এবং তা আবার ১৫ শতকের পর অর্থাৎ মোগল শাসনকাল থেকে।

মোগলরা আবার ধর্মপ্রচারে উদাসীন ছিলেন বলেই ইতিহাস স্বাক্ষ্য দেয়। নবম শতাব্দী থেকে আরব বণিকরা চট্রগ্রাম অঞ্চলে বসতি স্থাপন করে। অবশ্য তারা র্ধম প্রচার করতে আসেননি। বখতিয়ার খলজির মতো তারাও এসেছিলেন ইহলৌকিক লাভের আশায়। এদেশে বণিক ও যোদ্ধা ছাড়া আরো এসেছিলেন ধর্ম প্রচারকরা। তারা দেশ শাসন বা ব্যবসা করতে আসেননি।

তারা এসেছিলেন ধর্মপ্রচারে দ্বারা পুণ্য অর্জন করতে। মহম্মদ এনামুল হকের মতে এ রকম একজন প্রচারক বাবা আদম এসেছিলেন দ্বাদশ শতকের গোড়ায়। জানা যায় তিনি, নাকি বল্লভ সেনের সাথে যুদ্ধ করে ১১১৯ সালে মারা যান। তারপরে আসেন শাহ মুহম্মদ সুলতান। সে কালের প্রখ্যাত সুফি সৈয়দ জালালউদ্দিন মুসলিম শাসন প্রতিষ্ঠার কিছু আগে বঙ্গে এসেছিলেন। তারা সে সময় আগমন করলেও ইসলাম প্রচারে বিশেষ সুবিধা করতে পারেননি। কারণ তখন রাজনৈতিক পৃষ্ঠপোষকাতার অভাব ছিল। তবে মুসলিম শাসন প্রতিষ্ঠায় ইসলাম প্রচার প্রসারে ব্যাপক সাহায্য করেছিল। সুলতানদের লক্ষ্য না হলেও তারা আদৌ ধর্মনিরপেক্ষ ছিলেন না। তারা বরং বিদ্বেষের কর্তৃত্বকে প্রতিষ্ঠিত এবং জোরদার করার জন্য অকাতরে ধর্মের নাম এবং প্রতীক ব্যবহার করেছেন। সেই সঙ্গে ব্যাবহার করেছেন তরবারি। নিজেদের নামে খুৎবা প্রচলন রীতি তখন প্রকাশ্যে রীতি হিসেবে গৃহীত হয়েছিল। মুসলমানদের সংখ্যা কম হলেও তারা বহু মসজিদ নির্মাণ করেছিলেন ও নির্মাণ করতে সাহায্য করেছিলেন। বস্তুত মসজিদ ধর্ম প্রচারের প্রতিকে পরিণত হয়েছিল। নতুন কর্তৃত্বের সমকালীন ঐতিহাসিক মিনহাজ এর বিবরণ থেকে জানা যায়, জাহাঙ্গীর খিলজী গোবিন্দ পালের রাজধানী অজন্তপুরী আক্রমন করে এবং রাজধানী দখলের পর বৌদ্ধবিহার লুটপাট এবং বৌদ্ধ ভিক্ষুদের  হত্যা করে। অনেক বৌদ্ধ সে সময় মুসলমানদের অত্যাচার থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য দক্ষিণ পূর্ববাংলায় এবং নেপালে আশ্রয় নেয়। হিন্দু মন্দিরও ভেঙ্গে ফেলেন। এছাড়া তাদের মূর্তিপূজা বিরোধী মনোভাব ছিল। সুলতানি আমলেও প্রথম দিকে বৌদ্ধ বিহার ও মন্দির ধবংসের ঘটনা কমবেশি ঘটে থাকলেও জোর জুলুম করে হিন্দু প্রধান বাংলায় রাজ্যশাসন স্থায়ী হবে না তা তারা বুঝেছিলেন। এছাড়া গোটা দেশ জুড়ে ছিল ছোট বড় হিন্দু রাজা ও জমিদার। তাদের বশে না-রাখতে পারলে ভূমি রাজস্ব পাওয়া যাবে না। এ কারণে সুলতানি শাসনের পরবর্তীকালে শাসকগণ ধর্ম প্রচারে উৎসাহিত ছিলেন না। বাংলায় ইসলাম ধর্মের বিকাশে যত মতবাদই থাক না কেন এদেশে মুসলিম শাসনের প্রাক্কালে আরব, তুরস্ক, ইরাক থেকে যে সংস্কৃতির প্রবাহের ঢেউ এসে ধাক্কা দেয় তা ধীরে ধীরে বাংলার আনাচে কানাচে ছড়িয়ে পড়ে। একথা কোনো ইতিহাসবিদ অস্বীকার করতে পারবেন না। একথা ঠিক যে, কোনো অঞ্চলে সভ্যতার উন্মেষ ঘটলে তার প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ‍উভয় প্রভাব সর্বত্র ছড়েয়ে পড়ে। এক্ষেত্রে প্রত্যক্ষভাবে মুসলমান বিজয়ীরা মুসলিম সংস্কৃতির বিকাশ বঙ্গে ঘটেয়েছিল। তবে প্রথম দিকে তা ফরিদপুর অঞ্চলে বা পূর্ববঙ্গে ঘটেনি। পূর্ববঙ্গ তখনও মুসলিম শাসনের আওতায় আসে নাই। ১২৭৫ খ্রি. সুলতান মুগীস উদ্দিন তুগরিল দিল্লীর বশ্যতা অস্বীকার করে স্বাধীনতা ঘোষণা করেন এবং নিজ নামে খুৎবা পাঠ এবং মুদ্রা চালু করেন। তিনি পদ্মা নদীর দুই তীরবর্তী অঞ্চলে বিশেষ করে বর্তমান রাজবাড়ি ফরিদপুর এবং ঢাকা জেলার পশ্চিম-দক্ষিণাংশের উপর কর্তৃত্ব স্থাপন করেন।

সুলতান রুকুনউদ্দিন বরবক শাহের পুত্র শামসুদ্দিন ইউসুফ শাহ (১৪৭৪-১৪৮১) সাত বছর বাংলা শাসন করেন। ইউসুফ শাহের মৃত্যুর পর তার পুত্র সিকান্দার শাহকে (১৪৮১) সরিয়ে রুকুনউদ্দিন বরবক শাহের ছোট ভাই ফতেহ শাহ (১৪৮১-১৪৮৯) ক্ষমতা দখল করেন।

Additional information