ধর্মীয় সম্প্রদায় - পৃষ্ঠা নং-৩

ফতেহ শাহর সময়ে গোপালগঞ্জ, মাদারীপুর, ফুলেশ্বরী, ইদিলপুর, রাজবাড়ি মোগল শাসকরা বসতি স্থাপন করে। ১৪৮৭ থেকে ১৪৯৩ হাবশী ক্রীতদাসগণ বাংলা শাসন করেন। এ সময় ছিল অশান্তির যুগ। ১৪৯৩ খ্রিস্টাব্দের সুলতান আলাউদ্দিন হুসেন শাহ লক্ষ্ণৌতে তথা বাংলার সিংহাসনে আসিন হন। তার সময়েই ফতেহবাদ অঞ্চল সরাসরি মুসলমানদের অধিকারে আসে। ফতেহবাদ অঞ্চলকে নুশরতশাহী, মাহমুদশাহী, ইউসুফশাহী ও মাহমুদাবাদ নামকরণ করেন। এরমধ্যে রাজবাড়ি নশরত শাহী ও ফতেহাবাদে অন্তভুক্ত হয়। (পরগনা হিসেবে রাজবাড়ি নুশরতশাহী দেখা যায়।) সুলতানি শাসনকালে প্রায় ২০০ বছর ফতেহাবাদ উল্লেখযোগ্য শাসন কেন্দ্রে পরিণত হয়। ফতেহবাদ টাকশালি থেকে মুদ্রা উত্তোলন হত। দীর্ঘকাল ও অঞ্চল মুসলিম শাসনাধীন থাকায় ইসলামের প্রসার ঘটাই স্বাভাবিক। এরমধ্যে হুসেন শাহের বংশের রাজত্বকাল ১৪৯৩-১৫৩৮। সুদীর্ঘ প্রায় ৫০ বছর রাজত্বকালে হুসেন শাহ ও তার পুত্র নশরত শাহ ইসলাম ধর্ম প্রচারে অনেক মসজিদ নির্মাণ করেন। নশরত শাহের নির্মিত গৌড়ের সোনা মসজিদ, কদম-রসুল মসজিদ, বার দুয়ারী মসজিদ স্মৃতিস্বরুপ ইসলাম প্রসারের দৃষ্টান্ত বহন করে। ফরিদপুর জেলার বোয়ালমারী থানায় অবস্থিত সাতৈর মসজিদ তাঁর কীর্তি (ফরিদপুরের ইতিহাস, আনম আবদুস সোবহান, পৃষ্ঠা-৩৬)। নশরত শাহ ও তাঁর পিতা হুসেন শাহ প্রজাহিত কাজ ও ইসলাম প্রচারে আরো মসজিদ সরাইখানা নির্মাণ করেন। রাজবাড়ি অঞ্চলটি ফতেহাবাদ, নশরতশাহী এবং মাহমুদাবাদের অংশবিশেষ। রাজবাড়িতে কালুখালির অদূরে ‘রুপসা গায়েবী মসজিদ’, সূর্যনগরের নিকটবর্তী ‘বাগমারা গায়েবী মসজিদ’, আলাদীপুর ইউনিয়নের ‘শিঙ্গা গায়েবী মসজিদ’ নামে ৫০০-৭০০ বছরের পুরানো এসকল মসজিদের ধবংসাবশেষ এখনো দেখা যায়। এ বিষয়ে পরে আলোচনা করা যাবে। মসজিদগুলি হুশেণী বংশের রাজত্বকালে নির্মিত।

তুর্কি শাসনের শুরু থেকে বাংলায় মোগল শাসনের পূর্বকালে প্রায় ৪০০ বছর ধরে ধীরে ধীরে বঙ্গে ইসলাম প্রসার লাভ করেছে। এ প্রসারের কারণ হিসেবে চিহ্নিত করা যাবে (১) মুসলমানদের শাসন প্রভাব ও পৃষ্ঠপোষকতা (২) ধর্মে মূর্তির বদলে অমূর্তের আদর্শে জোরপূর্বক হিন্দু দেবদেবী ধবংস (৩) পীর আউলিয়াদের ধর্ম প্রচারে স্বেচ্ছায় ধর্মান্তরিত হওয়া ইত্যাদি। রামাই পণ্ডিতের শূন্য -পূরাণে ইসলাম ধর্মের প্রসারের চিত্র এভাবে বর্ণনা করা হয়েছে।

যথেক দেবতাগণ/ সভে হৈয়্যা একমন/ আনন্দেতে পরিলা ইজার/ ব্রাহ্মহৈল্যা মহামদ/ বিষ্ণু হইলা পেকাস্বর/ অদম্ফ হইল্যা শুলপানি। গণেশ গাজী/ কাত্তিক হইল্যা কাজী। ফকীর হইল্যা যথামুনি তেজিয়্যা আপন ভেক/ নারদ হইল্যা শেক, পুরন্দর হইল্যা মওলানা। আপনি চণ্ডিকা দেবী/ তিহ হইল্যা হায়া বিবি/ পদ্মাবতী হইল্যা বিবিনুর। যথেক দেবতাগণ/ সভে হয়্যা একমন/ প্রবেশ করিলা জাজপুর। দেউল দোহারা ভাঙ্গে/ ক্যাড়া ফ্যিড়া খায় বঙ্গে/ পাখর পাখর বলে বোল।

এখানে জাজপুরের মন্দিরে প্রবেশ করে দেবতাদের মূর্তি ভাঙ্গার যে বর্ণনা দেওয়া হয়েছে তা সুলেমান কারবানীর সেনাপতি কালাপাহাড়ের মন্দির তছনছ করার ঘটনা। সে ঘটনা ঘটে ২৫৬৮তে। তবে এ কাব্য রচিত হয় কালাপাহাড় কিংবদন্তিতে পরিণত হওয়ার পর। হয়ত সপ্তদশ শতকের কোনো এক সময়ে। ফলে সত্যের সঙ্গে অতিরঞ্জন মিশে গেছে। বঙ্গদেশে ইসলাম ব্যাপকভাবে প্রচারিত ঠিকই কিন্তু দেবতারা সবাই এক হয়ে রাতারাতি মুসলমান হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে ছিলেন তা ঠিক নয়। বরং ধারণা করা সঙ্গত হবে যে ইসলাম ধর্ম তড়িৎগতিতে নয়, পূর্ববঙ্গসহ বাংলার সর্বত্র ছড়িয়ে পড়েছিল ধীরে ধীরে । তবে উক্ত চিত্র থেকে একটা বিষয় স্পষ্ট হয়ে ওঠে যে মোগল শাসনের পূর্ব পর্যন্ত বিভিন্ন শ্রেণির হিন্দু ইসলামের দীক্ষাগ্রহণ করেন। কেবল হিন্দু নয় এ অঞ্চলে ব্যাপকহারে বৌদ্ধদের বসবাস ছিল। বৌদ্ধরাই বেশি হারে ইসলাম গ্রহণ করে।

অনেক খ্যাতনামা সাহিত্যিকদের লেখায় ‘ন্যাড়া’ ‘যবন’ ইত্যাদি শব্দ পাওয়া যায়। বালিয়াকান্দি ও পাংশা এলাকায় ‘নম’; ও ‘নাড়ে’ বিপরীতমূখী দুটি কূট শব্দ সাধারণ্যে ব্যবাহর হয়। শব্দ দুটি অপমানজনক শব্দ বলে উভয় সম্প্রদায় মনে করে। এ নিয়ে অতীতে কাইজা ফ্যাসাদ ঘটত। মূলত ন্যাড়া থেকে না’ড়ে শব্দটি উদ্ভুত।

Additional information