স্মরণীয় যাঁরা - পৃষ্ঠা নং-৭

অ্যাডভোকেট আবুল কাশেম মৃধা

জ্ঞানের পক্কতায় পরিপুষ্ট আবুল কাশেম মৃধা। কালুখালিতে জন্মগ্রহণকারী  এ বিশিষ্ট ব্যক্তি প্রায় চার দশক ধরে রাজবাড়ি কোর্টে ওকালতি করে অবসর জীবনযাপন করছেন। রজাবাড়ি জেলার মধ্যে তিনি বিশিষ্ট আইনবিদ বলে পরিচিত। অ্যাডভোকেট আবুল কাশেম মৃধা আলোচনা, কথা ও রাজনীতিতে মুক্তবুদ্ধি চর্চায় উদ্বুদ্ধ করেন। তিনি একসময় আওয়ামীলীগের সাতে সংশ্লিষ্ট ছিলেন। পরে মওলানা ভাসানীর আদর্শে অনুপ্রাণিত হন। সম্প্রতি তিনি পরলোকগমন করেছেন।

গোলাম কবীর মিয়া

রাজবাড়ি শহরে গোলাম কবীর মিয়া সকলের নিকট জিকে মিয়া হিসেবে অধিক পরিচিত ছিলেন। তিনি রেলওয়ে বিভাগে চাকরি করতেন। শেষজীবনে তিনি অনেক সমাজকর্মের সাথে জড়িত ছিলেন। তার জ্যেষ্ঠ পুত্র ডা. এনায়েত কবির এফআরসিএস দেশের একজন বিশিষ্ট চিকিৎসক। ডা. এনায়েত কবির ফরিদপুর মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ছিলেন। তার আর এক পুত্র প্রফেসর হেদায়েত কবির দীর্ঘদিন সরকারি রাজেন্দ্র কলেজে শিক্ষকতা করে রাজবাড়ি সরকারি কলেজের উপাধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি মানিকগঞ্জ দেবেন্দ্র কলেজের অধ্যক্ষের পদে থাকাকালীন অবসর গ্রহণ করেন। তার আর এক পুত্র শাহজাহান কবির এশিয়া ফাউন্ডেশনের এশিয়া অঞ্চলের প্রোগ্রাম ডাইরেক্টর। শাহজাহান কবীরের স্ত্রী ফারাহ কবির বেতার ও টিভির ইংরেজি সংবাদ পাঠক। তার অন্য পুত্র শাফায়েত জামিল পেট্রো বাংলার জিএম। এ পরিবারটির সকলে রাজবাড়িসহ দেশের সেবা করে চলেছেন।

চিকিৎসক

ডা. প্রমথ নাথ দত্ত

ডা. মাখনলাল রায় সাহা

ডা. মোঃ মোয়াজ্জেম হোসেন

ডা. গোলাম সামদানী

ডা. প্রমথ নাথ দত্তডা. মাখন লাল রায়শাহা ডা. মোঃ মোয়াজ্জেম হোসেনডা. গোলাম সামদানী রাজবাড়ি অতীতকাল থেকেই রোগব্যধি আক্রান্ত এলাকা। ম্যালেরিয়া, কলেরা, গুটি বসন্ত প্রভৃতি ছোঁয়াচে রোগের প্রাদুর্ভাবে শতশত মানুষের প্রাণহানী হত। দীর্ঘ ৪০ বৎসর ধরে কয়েকজন নিবেদিত চিকিৎসক সার্বক্ষণিক মানুষের চিকিৎসাসেবা প্রদান করতেন। এর মধ্যে ডা. প্রমথনাথ দত্ত, ডা. মাখনলাল রায়সাহা, ডা. গোলাম সামদানী, ডা. মোঃ মোয়াজ্জেম হোসেন উল্লেখযোগ্য।

Additional information