স্মরণীয় যাঁরা-২ - পৃষ্ঠা নং-৬

 তরুণ বিজ্ঞানী সাইফুল ইসলাম

রাজবাড়ি কলেজের প্রাণী বিজ্ঞান বিভাগের প্রধান সহযোগী অধ্যাপক তেজেন্দ্র কুমার চন্দের অনুপ্রেরণায় মাছের ক্ষত রোগের কারণ ও ঔয়ধ উদ্ভাবন করে জাতীয় বিজ্ঞান সপ্তাহে শ্রেষ্ঠ পুরস্কারপ্রাপ্ত হন সাইফুল ইসলাম। সেই থেকে সাইফুলের চলা। দেশব্যাপী তখন মাছের ক্ষত রোগের প্রাদুর্ভাব চলছে। তার ঔষধ আবিস্কার এলাকায় সাড়া পড়ে যায়। মৎস্যচাষীদের মধ্যে আবার আশার সঞ্চার হয়। এরপর সাইফুল জগন্নাথ কলেজে প্রাণিবিজ্ঞান বিভাগে ভর্তি হয়। অতঃপর জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর কর্তৃক তরুণ ও অপেশাদার বিজ্ঞানীদের উদ্ভাবিত উন্নয়ন প্রকল্পের অধীনে ফেলোশীপ বৃত্তি লাভ করে। ১৯৯৪ সালে বাংলাদেশ ইউনেস্কো জাতীয় কমিশন দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়ার আঞ্চলিক কার্যালয়ের সহায়তায় ইউনেস্কো আযোজিত সপ্তাহে পুরস্কার লাভ করে। সাইফুলের গ্রামের বাড়ি গোপালপুর (মদাপুর) রাজবাড়ি। 

প্রফেসর সাইদুল হাসান

প্রফেসর সাইদুল হাসানের ছিল জ্ঞান অন্বেষণ ও শিক্ষার প্রতি গভীর অনুরাগ। উচ্চতর বিভিন্ন পেশায় যোগদানের সুযোগ থাকা সত্তেও শেষ পর্যন্ত শিক্ষা ক্যাডারে যোগদান করেন ১৯৭৪ সালে। দীর্ঘজীবনের শিক্ষাকতায় প্রথম যোগদান রাজবাড়ি কলেজে (১৯৭৪)। ১৯৭৪ সালে তিনি ময়মনসিংহ ক্যাডেট কলেজে যোগদান করেন। ঐ বছরই তিনি বিসিএস ক্যাডার (শিক্ষা) উদ্ভিদবিদ্যার প্রভাষক হিসেবে খুলনা বিএল কলেজে যোগদান করেন। এরপর তিনি ডিস্ট্রিক্ট পপুলেশন অফিসার হিসেব প্রেষণে দশ বছর কর্মরত থেকে বিএল কলেজের উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান হিসেবে যোগ দেন। অতঃপর যশোর সরকারি সিটি কলেজ, পটুয়াখালি সরকারি কলেজ, আজম খান কমার্স কলেজে উপাধ্যাক্ষের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি খুলনা সুন্দরবন কলেজের অধ্যক্ষ এবং খুলনা কলেজের অধ্যক্ষ এবং খুলনা বিএল কলেজের অধ্যক্ষের গুরুদায়িত্ব পালনের পর যশোর শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান এর দায়িত্বপ্রাপ্ত হন। বর্তমানে তিনি অবসর জীবনযাপন করছেন। সাইদুল হাসান রাজবাড়ির সজ্জনকান্দা নিবাসী আব্দুর রহমানের (পুলিশ বিভাগের কর্মকর্তা) পুত্র। রাজবাড়ির মানুষের সাথে সাইদুল হাসানের অতি ঘনিষ্ঠতা। খুলনায় স্থায়ীবসতি গড়ে তুললেও বাবা, মা ও মাটির টানে প্রতিনিয়তই ছুটে আসেন রাজবাড়ি। রাজবাড়ি, খুলনা তথা দেশের সার্বিক কল্যাণে নানা কর্মকাণ্ডে নিজেকে নিয়োজিত রাখেন।

ডক্টর শেখ মহঃ রেজাউল ইসলাম

রাজবাড়ি জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার বাকসাডাঙ্গি গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারের সন্তান। মধুখালি উপজেলাধীন মেঘচামী গ্রামে নানা বাড়িতে ১৯৬২ সালে তাঁর জন্ম। তাঁর পিতা মরহুম আজিজুল ইসলাম ছিলেন বালিয়াকান্দি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। মাতার নাম মরহুমা সালেহা বেগম। রেজাউল ইসলাম কিছুদিন নারুয়া এলএএম উচ্চ বিদ্যালয়ে লেখাপড়া করেন। ১৯৭৮ সালে বালিয়াকান্দি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে কৃতিত্বের সাথে বিজ্ঞান বিভাগে মাধ্যমিক এবং ১৯৮০ সালে সরকারি রাজেন্দ্র কলেজ, ফরিদপুর থেকে একই বিভাগে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেন। ১৯৮৪ সালে শেরে - বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কৃষিতে স্নাতক ও বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ময়মনসিংহ থেকে এমএস (কৃষিতত্ত্ব) করেন। পরবর্তী সময়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উদ্যানতত্ত্বে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন।

Additional information